Breaking News

বিশ্বভারতীর নিরাপত্তা ও পৌষমেলার দায়িত্ব দেওয়া হোক কেন্দ্র সরকারকে, সরব বিজেপি সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত

রোহিত সেখ, নিউজ অনলাইন, কীর্ণাহার, বীরভূম: এক মাস আগে বিশ্বভারতীর পৌষমেলার মাঠে পাঁচিল তোলা নিয়ে উত্তেজনার সৃষ্টি হয় ৷ ঘটনায় উত্তাল হয় গোটা রাজ্য । সেই থেকে পক্ষ-বিপক্ষে তরজা চলছে রাজনৈতিক মহলে । বাদল অধিবেশনে জ়িরো আওয়ারে ফের সেই বিশ্বভারতী প্রসঙ্গ তোলা হল । BJP-র রাজ্যসভার সদস্য স্বপন দাসগুপ্ত এইদিন অধিবেশনে বিশ্বভারতীর প্রসঙ্গ তুললেন । বুধবার বিশ্ববিদ্যালয় ভবন ও এখানকার কর্মীদের জন্য কেন্দ্রীয় নিরাপত্তার দাবি করেন তিনি ।বিশ্বভারতীর পৌষমেলার মাঠে পাঁচিল দেওয়া নিয়ে তরজা একদিনের নয় । সূত্রের খবর, গত বছর পৌষমেলার পর থেকেই মাঠ ঘেরার পরিকল্পনা ছিল বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ । উলটো দিকে, পৌষমেলার মাঠ ঘেরা যাবে না, এই দাবিতে সরব হয়েছিলেন শিক্ষার্থীরা । স্থানীয়রা অনেকেই পাঁচিলের বিপক্ষে ছিলেন । প্রসঙ্গত শান্তিনিকেতনের পৌষ মেলার মাঠে পাচি তোলাকে কেন্দ্র করে রীতিমতো রণক্ষেত্র হয়ে ওঠে মেলারমাঠ চত্বর বিশ্বভারতীর অস্থায়ী ক্যাম্প বিশ্বভারতীর গেট নির্মাণ সামগ্রী ভেঙে তছনছ করে দেয় ব্যবসায়ী সমিতি ও বোলপুর বাসিন্দাদের বিরুদ্ধে সেই মিছিলে সামনের সারিতে দেখা যায় দুবরাজপুরের বিধায়ক নরেশ চন্দ্র বাউড়ি কে এই নিয়ে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ করে ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আটজনকে গ্রেপ্তার করল মূল অভিযুক্ত নরেশ চন্দ্র বাউড়ি কিন্তু গ্রেপ্তার করা হয়নি এই নিয়ে প্রশ্ন ছুড়ে দেয় বিজেপি মহিলা মোর্চা সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল তার পরই একাধিকবার বিশ্বভারতী এই পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রনে আনার জন্য প্রশাসনের সঙ্গে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ একাধিকবার বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেয় শেষমেষ বোলপুর মহকুমা শাসক অফিসের সামনে সেই বৈঠক হয় তার পরই তিনি রাস্তায় বেরিয়ে সাইকেল নিয়ে শান্তিনিকেতন এলাকা জুড়ে তদারকি করেন পাশাপাশি শ্রমিকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের অভাব-অভিযোগের কথা শুনে।

No comments