Breaking News

হাওড়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ১০০ছাড়ালো, মৃত ৮, আসছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিম, গ্রামীণ এলাকায় মানুষের মধ্যে নেই সচেতনতা


কল্যাণ অধিকারী, হাওড়া: লকডাউন মেনে ঘরে থাকার কথা বলছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু গ্রামীণ হাওড়ার অধিকাংশ এলাকায় সকালের দিকে মানছে না সচেতনতা। বাজারের ব্যাগ ঝুলিয়ে বাইকে ঘোরাঘুরি করছে। জটলা করে কেনাকাটা করছে সেই সাধারণ মানুষ। ভিড় ও জটলায় লকডাউনের চিহ্ন মাত্র লক্ষ্মণ নেই।

হাওড়া জেলা কে অনেকদিন আগেই হটস্পট জেলা হিসাবে ঘোষণা করেছে প্রশাসন। দিনদিন জেলায় বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক জানাচ্ছেন হাওড়া জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০৫। মৃত্যু হয়েছে ৮জন করোনা আক্রান্ত রোগীর। তবে আশার খবর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ১১জন। জানা গেছে হাওড়া জেলার উপর বাড়তি নজরদারি চালানো হচ্ছে। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে বিভিন্ন এলাকায়৷ ইতিমধ্যে হাওড়া জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক নিশীথ বরণ মণ্ডল কে বদলি করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি ঘুরে গেছে। এবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ৬জনের একটি প্রতিনিধি দল আসছে। হাওড়া পুরসভার একাধিক ওয়ার্ড ঘুরে দেখবেন এমনটাই সূত্রের খবর। তারপরও মানুষজনের মধ্যে সচেতনতা কবে ফিরবে প্রশ্ন উঠছে।

শনিবার সকাল থেকে রানিহাটি, পাঁচলা, আমতা এলাকায় মানুষের ভিড় ও জটলা ছিল অন্যান্য দিনের থেকে বেশি। বাইক নিয়ে অবাধে চলাচল করছেন, দোকানে সামনে মানুষের জটলা ও ভিড় দেখে বোঝার উপায় নেই লকডাউন চলছে। গ্রামীণ পুলিশের পক্ষ থেকে এলাকায় মাইকিং করা হলেও মানুষের মধ্যে সচেতনতার ছিটেফোঁটা লক্ষ্মণ নেই। পাতলা মাস্ক পড়ে ঘোরাঘুরি করছে কারও মুখে আবার সেটাও নেই। অথচ হাওড়ার শহরের বেশকিছু এলাকাকে করোনার রেড জোন হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে। সংক্রমণ ছড়ানোর আশংকা সর্বত্র। তারপরও গ্রামীণ এলাকায় ছিটেফোঁটাও সচেতনতা মানছেন না। 

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে উলুবেড়িয়ার ইএসআই হাসপাতাল এবং সঞ্জীবন হাসপাতালে করোনা চিকিৎসাকেন্দ্র করা হয়েছে। উলুবেড়িয়ার ইএসআই হাসপাতাল কে করোনা আইসোলেশন-১ হিসাবে গণ্য করা হয়েছে। করোনার প্রাথমিক লক্ষ্মণ নিয়ে আসাদের এখানে তাদের চিকিৎসা ও কোয়ারান্টাইন করা হচ্ছে। পাশাপাশি সঞ্জীবন হাসপাতাল কে করোনা আইসোলেশন-২ করা হয়েছে। দুটি হাসপাতালে চিকিৎসার খরচ বহন করছে রাজ্য সরকার। কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল উলুবেড়িয়া সঞ্জীবন হাসপাতালে ঘুরে গেছেন। এতকিছুর পরেও সাধারণ মানুষ নিরাপদে খুল্লামখুল্লা ঘুরে বেড়াচ্ছেন। জটলা করছেন।

No comments