Breaking News

দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় ফের নতুন করে ৫২ জন করোনায় আক্রান্ত

শিব শঙ্কর চ্যাটার্জি, নিউজ অনলাইন: করোনা সক্রমন রুখতে আগষ্ট মাস জুড়ে নয় দিন লকডাউন ঘোষনার রাত পোহাতে না পোহাতেই দক্ষিন দিনাজপুর জেলায় ফের নতুন করে ৫২ জনের শরীরে মিলল করোনার হদিশ। এর ফলে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হল ১০৬৯। গতকাল বিকেল পর্যন্ত ৭৮৪ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।নতুন আক্রান্তদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তবে আক্রান্তদের মধ্যে বেশিরভাগই উপসর্গহীন বলে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে। 

এদিনের নতুন করে আসা ৫২ জন করোনা সক্রমনে আক্রান্তদের মধ্যে উল্লেখ যোগ্য ভাবে প্রায় সীংহভাগ  ২২ জন  বালুরঘাট শহরের বাসিন্দা। না আছে এদের পুরনো ভ্রমন বৃত্তান্ত না রয়েছে করোনার কোন উপসর্গ।বাকি আক্রান্তদের মধ্যে বুনিয়াদপুরের ২ জন, হিলির ৬ জন, গঙ্গারামপুরের ১০ জন, কুশমণ্ডির ৩ জন, হরিরামপুরের ৪ জন, কুমারগঞ্জের ৩ জন।এদিকে বালুরঘাটের নতুন আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছে চকভৃগু আখিরাপাড়ার একজন, বিশ্বভারতী এলাকার তিনজন, কলেজপাড়ার একজন, ঢাকা কলোনীর দুইজন, ডাকবাংলোপাড়ার দুইজন, ফকিরগঞ্জের একজন, অমৃতখণ্ড মালঞ্চার একজন, খাদিমপুর এলাকার একজন, মঙ্গলপুরের একজন, মনিমেলা স্কুল পাড়ার একজন, নারায়নপুর বাসস্ট্যান্ডের একজন, বিশ্বাস পাড়ার দুইজন, বালুরঘাট পুলিশ লাইনের তিনজন, সাড়ে তিন নম্বর মোড়ের দুইজন,  বলে সুত্র মারফ্যত পাওয়া গেছে। 
এদিন নতুন আক্রান্তদের জেলার বিভিন্ন সেফ হোম ও কোভিড হাসপাতলে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হচ্ছে।
জানা গিয়েছে, বুধবার রাতে মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে এই ৫২ জনের সোয়াব টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসে।যদিও এ বিষয়ে এখনই কোনও মন্তব্য করতে চাননি জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিকরা।

এদিকে আজও করোনা মোকাবিলায় রাজ্য জুড়ে জারি থাকা লকডাউন দক্ষিন দিনাজপুর জেলাতেও চলছে। অপরদিকে বালুরঘাট শহরে করোনার প্রকোপ বাড়ার দিকে লক্ষ রেখে যা এতদিন ব্যবসায়ী সমিতি করেনি গত সপ্তাহ থেকে তা করতে বাধ্য হয়েছে। এমনিতেই বালুরঘাট শহরের প্রধান পুর বাজার ঘিঞ্জি ও অপিরসর।  মানুষজনের ভীড় উপচে পড়ে। গায়ের উপর গা ঘেষাঘেষি করে চলে বিকিকিনি। মুখে কেউ কেউ মাস্ক পড়লেও মানা হয়না সোসাল ডিসটেন্স।  এদিকে বাজারে ঢোকা বেড়নোর মুখের রাস্তায় নেই কোন স্যানিট্যাইজেশন চ্যানেল। যার ফলে সক্রমন রোখা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ছে। সেদিকে তাকিয়েই ব্যবসায়ী সমিতি সপ্তাহে ছেড়ে ছেড়ে তিনদিন পুরো বন্ধ রেখেছে।

No comments