Breaking News

নব নিযুক্ত দার্জিলিং জেলা যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতিকে সংবর্ধনা দিল ফাঁসিদেওয়া ব্লক ২ তৃণমূলের কর্মী সমর্থকরা

বিশ্বজিৎ সরকার, নিউজ অনলাইন: 
শুক্রবার শিলিগুড়ি মহকুমার ফাঁসিদেওয়ার ব্লকের বিধাননগরে নব নিযুক্ত দার্জিলিং জেলা যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি কুন্তল রায়কে সংবর্ধনা দিল ফাঁসিদেওয়া ব্লক ২ এর তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা।উপস্থিত ছিলেন শিলিগুড়ি মহকুমার বিরোধী দল নেতা তথা ফাঁসিদেওয়া ব্লক ২ এর তৃণমূল সভাপতি কাজল ঘোষ,বিধাননগর ১ নং অঞ্চল সভাপতি ফনি দাস, ২ নং অঞ্চল সভাপতি বিশ্বজিৎ সরকার সহ তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা। এদিন নব নিযুক্ত দার্জিলিং জেলা যুব তৃণমূলের সভাপতিকে ফুলের তোরা দিয়ে সংবর্ধনা দেন কাজল ঘোষ। এর পাশাপাশি একটি মিছিল করেন। এই মিছিলটি শুরু হয় বিধাননগর থানার সামনে থেকে। এরপর মিছিলটি বিধাননগর তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয় হয়ে বাজার হয়ে শেষ হয় বিধাননগর থানার সামনেই। এরপর দার্জিলিং জেলা যুব তৃণমূলের সভাপতি কুন্তল রায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন যে নতুন দায়িত্ব পেয়েছি। সেই দায়িত্ব পেয়ে সব অঞ্চল ঘুরছি। এবং আমাদের নির্শেদ দেওয়া হয়েছে ৪০ বছরের উপরে কাউকে যুবর ব্লক সভাপতি করতে  পারবো না। সেই সব কথা মাথায় রেখেই আমাদের ঘুরতে হচ্ছে। এবং আমরা প্রত্যেকটা ব্লক থেকে অঞ্চল থেকে কমিটি গঠন করা। এর পাশাপাশি তিনি আরও বলেন যে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদীর সরকার এডভেটাইজমেন এর উপর টিকে আছে। আর একটা সময় যুব সমাজ নরেন্দ্র মোদির উপর প্রত্যাশা রেখে ছিল। তারা ভেবে ছিল যে বিজেপি সরকার কিছু ভাল কাজ করবে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে বিজেপি কিছু করতে পারছে না। এবং আমাদের ভারতবর্ষে যা সম্পতি ছিল তার বেসরকারি করণ করে দিচ্ছে। এছাড়া বিজেপি শুধু ধর্মের নামে রাজনীতি করছে। কারও করোনা হলে নরেন্দ্র মোদীর সরকার বলছে লাইট জালাতে থালা বাজাতে। একদিকে যখন করোনার হাহাকার হাসপাতাল তৈরির প্রয়োজন সেখানে তারা রাম মন্দির তৈরিতে ব্যস্ত। এই রকম একটা সরকারের প্রতি যুব সমাজ আসক্ত থাকতে পারে না।এবং তারা ফিরে আসছে। আমরা বিশ্বাস করি ২০২১ এর ভোটের আগে বিজেপির যুব সমাজ বলে কিছু থাকবে না। এবং আগামী এক বছরে বিজেপি শূন্য হয়ে যাবে।

No comments